যেহেতু আমাদের স্রষ্টা আছেন তবে স্রষ্টার স্রষ্টা থাকতে পারবেন না কেন?

আস্তিক্যবাদ আর নাস্তিক্যবাদীরা নিজেদের পক্ষে অসংখ্য মতবাদ উপস্থাপন করে থাকেন। তবে যৌক্তিক বিচারের ক্ষেত্রে মতবাদ ছাড়াও কিছু প্রশ্নকেও গুরুত্ব দিতে হয়। নাস্তিক্যবাদীগন স্রষ্টার অস্তিত্বর বিপক্ষে মতবাদ দেয়া ছাড়াও স্রষ্টার অস্তিত্ব নিয়ে বেশ কিছু প্রশ্ন করেছেন। এর মধ্যে বেশকিছু প্রশ্নর যথাযথ উত্তর না পাওয়া গেলে ধরে নেয়া যায় যে স্রষ্টার অস্তিত্ব নেই। এরকম ১ টি প্রধান প্রশ্ন নিয়েই এই আলোচনা।

প্রশ্ন ১:

যেহেতু আমাদের স্রষ্টা আছেন তবে স্রষ্টার স্রষ্টা থাকতে পারবেন না কেন?

প্রশ্ন ১ এর উত্তরঃ

আমরা এই প্রশ্নের উত্তর দেয়ার আগে কিছু দার্শনিক মূলনীতি (phylosophical axioms) বিবেচনা করিঃ

মূলনীতি ১ঃ কোন কিছু অবশ্যই অন্য কোন কিছু থেকে এসেছে।

ব্যাখ্যাঃ

মহাবিশ্বে সবকিছুই অন্য কোন কিছু থেকে উৎপন্ন। যেমনঃ সন্তান- পিতা মাতা থেকে, পাতা – গাছ থেকে। এমন কোন কিছু আমরা খুঁজে পাইনা যা অন্য কোন কিছু হতে উৎপন্ন নয়। তাই বলা যায় এই মহাবিশ্ব ও এর অন্তরগত সকল অস্তিত্ব অবশ্যই কোন কিছু থেকে এসেছে।

মূলনীতি ২ঃ শূন্য কোন অস্তিত্ব নয়।

ব্যাখ্যাঃ শূন্য মানে- যা কোন কিছু নয়। আবার অস্তিত্ব মানে- কোন কিছু। এখন “যা কোন কিছু নয়” তা কখনই “কোন কিছু” হতে পারে না। তাই শূন্য কোন অস্তিত্ব নয়।

মূলনীতি ১ ব্যবহার করে অনেক আস্তিকগন অজ্ঞতাবশত বলে থাকেন যে ” যেহেতু কোন কিছু অবশ্যই অন্য কোন কিছু থেকে এসেছে। তাই এই মহাবিশ্বই কোন কিছু থেকে এসেছে। আর এই কোন কিছুই হলেন স্রষ্টা। ”

এর ফলেই নাস্তিকগন প্রশ্ন করতে পারেন যে যেহেতু কোন কিছু অবশ্যই অন্য কোন কিছু থেকে এসেছে। তাহলে স্রস্টাও কোন কিছু হতে এসেছেন? আর যদি তিনি কোন কিছু হতে এসে থাকেন তাহলে তো তিনি সৃষ্ট। স্রষ্টা কোনভাবেই নন। আর তিনি স্রষ্টা না হলে তাকে স্রষ্টা কেন বলা হয়?

আসুন আমারা এই ধাঁধার সমাধান করার চেষ্টা করিঃ

মূলনীতি ১ হতে আমরা বুঝতে পারি সৃষ্টির শুরুতে অবশ্যই কিছু না কিছু ছিল। কেননা সৃষ্টির শুরু হতে হলে কোন কিছু থেকে তা শুরু হতে হবে। ( মূলনীতি ১ঃ কোন কিছু অবশ্যই অন্য কোন কিছু থেকে এসেছে।) । এখন যদি আমরা প্রশ্ন করি সৃষ্টির শুরু হয়েছিল যা থেকে তার শুরু কোথা থেকে হয়েছে?

লক্ষ্য করুন প্রশ্নে বলা হয়েছে “সৃষ্টির শুরু” কিন্তু আবার প্রশ্ন করা হয়েছে সেই “শুরুর শুরু” কখন হয়েছে?

অর্থাৎ এখানে শুরুর একটি শুরু আছে তাই বলা হচ্ছে। তাই নয় কি?

নিশ্চয়ই।কিন্তু শুরুর যদি শুরু থাকে তাহলে সেই “শুরু কি আসলেই শুরু হতে পারে??

না। তারমানে আমরা তাকেই শুরু বলি যার নিজের কোন শুরু নেই। তাই নয় কি??

তারমানে কিছুর শুরু হচ্ছে সেই অবস্থা যার আগে সেই কোন কিছু ছিল না।তাই নয় কি??

অর্থাৎ সৃষ্টির শুরু হচ্ছে সেই অবস্থা যার আগে কোন সৃষ্টি ছিল না।তাই নয় কি??

কিন্তু সৃষ্টির শুরু হওয়ার আগে কোন সৃষ্টি না থাকলেও কোন একটি অস্তিত্ব ছিল যা থেকে সৃষ্টির শুরু হয়েছে।তাই নয় কি?? ( মূলনীতি ১ঃ কোন কিছু অবশ্যই অন্য কোন কিছু থেকে এসেছে।)

তাহলে সৃষ্টির শুরুতে যে অস্তিত্ব ছিল তা কোন সৃষ্টি নয়। তাই নয় কি??

আর যদি সৃষ্টির শুরুর আগে বিদ্যমান সেই অস্তিত্ব কোন সৃষ্টি না হয় তবে সেই অস্তিত্বকে আমরা কি বলব??

স্রষ্টা নিশ্চয়ই ( কেননা একমাত্র স্রস্টাই কারও সৃষ্টি নন।)

Collected

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: