মধু সম্পর্কে ইসলাম

“মধু” মধুর মতোই সুস্বাদু একটি খাবার। এর খাদ্যমান বেশ উঁচু। শক্তি বর্ধনের জন্য মধুর ব্যবহার অনেকটাই স্বীকৃত। সর্দিকাশিতে তুলসী পাতার নিংড়ানো রসের সাথে মধু মিশিয়ে খাওয়ার মতো টোটকা চিকিৎসাতেও মধুর ব্যবহার আছে। মোটকথা, প্রাচীনপন্থী ও ইসলামপন্থী লোকেরা মধুকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিলেও অতোদিন পর্যন্ত মধুর রোগ নিরাময় ক্ষমতার বিজ্ঞানভিত্তিক কোন প্রমাণ ছিল না। অবশ্য মধু নিয়ে তেমন গবেষণাও হয়নি। ফলে মধুর জীবাণুনাশক তথা এন্টিবায়োটিক হিসেবে কার্যকারিতার মেকানিজম জানাও সম্ভব হয়ে ওঠেনি। কিন্তু বিশ্বাসীগণ মধুর রোগ নিরাময় ক্ষমতার কথা জানতেন। মহান আল্লাহ চৌদ্দশত বছর আগে তাঁর এক ‘উম্মী’ নবীর কাছে নাজিলকৃত কালামে এ ব্যাপারে স্পষ্ট ঘোষণা দিয়ে রেখেছেন। সূরা নাহলের ৬৮ ও ৬৯ নম্বর আয়াতে মহান আল্লাহ ঘোষণা করেছেন-
“আপনার পালনকর্তা মৌমাছিকে আদেশ দিলেন, পর্বতগাত্রে, বৃক্ষ এবং উঁচু ডালে গৃহ তৈরি কর, এরপর সর্বপ্রকার ফল থেকে চোষণ করে নাও এবং চল স্বীয় রবের সহজ-সরল পথে। তার পেট থেকে বের হয় নানা রঙের পানীয় যাতে রয়েছে মানুষের জন্য রোগের প্রতিকার। নিশ্চয় এতে রয়েছে চিন্তাশীল লোকদের জন্য নির্দশন।”
পবিত্র কোরআনের আটভাগের একভাগ অর্থাৎ আটশ’রও বেশি আয়াত প্রাকৃতিক ঘটনার কার্যকারণ সম্পর্কিত তথা বিজ্ঞান সম্পর্কিত। গত কয়েক দশকের গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কারগুলোর প্রতিটিরই উল্লেখ আছে পবিত্র কোরআনে।
প্রাণরসায়নবিদ প্রফেসর পিটার মোলান নিউজিল্যান্ডের ওয়াইকাটো বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘হানি রিসার্স ইউনিট’-এর ডাইরেক্টরদের মধ্যে একজন। গত দুই দশক ধরে প্রফেসর মোলানের ল্যাবরেটরিতে মধুর জীবাণুবিধ্বংসী গুণাগুণ নিয়ে অধিকাংশ গবেষণা কার্যক্রম চলে আসছে। তিনি বলেন, “রোগ প্রতিকারে আদিকাল থেকে মধুর ব্যবহার এখন আর কোন বিশ্বাসের ব্যাপার নয়।”
মধু এন্টিবায়োটিক হিসেবে কিভাবে কাজ করে তার মেকানিজমও বর্তমানে জানা সম্ভব হয়েছে। মধুতে পানির পরিমাণ থাকে খুবই কম। এই পানি স্বল্পতার কারণে শরীরের ক্ষতস্থান থেকে পানি চুষে নিতে পারে। ফলে সংক্রামক জীবাণু অনুকূল পরিবেশ পায় না। তাছাড়া সংক্রামক রোগের জীবাণু বা ব্যাকটেরিয়ার কোষের তরল পদার্থের চেয়ে মধুর ঘনত্ব বেশি বলে মধু জীবাণুর সংস্পর্শে এলে ব্যাকটেরিয়ার কোষ থেকে পানি বেরিয়ে মধুতে চলে আসে। ফলে পানি শূন্যতার কারণে জীবাণুর কোষ ধ্বংস হয়ে যায়।
অন্যদিকে, মধু সংগ্রহকারী কর্মী মৌমাছি ফুল ও ফল থেকে সংগৃহীত রসে গ্লুকোজ অক্সিজেন নামের একটি এনজাইম নিঃসরণ করে। মধু সিক্ত ক্ষতস্থানের সংস্পর্শে আসার পর গ্লুকোজ অক্সিজেন হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড নামের একটি রাসায়নিক উপাদান উৎপন্ন করে যা সংক্রামক রোগে জীবাণুনাশক হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।
বিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি পর্যন্ত মধু সংক্রামক রোগের প্রতিকারের প্রচলিত সনাতন রীতি হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছিল। কিন্তু পরবর্তীতে, বিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি আলেকজান্ডার ফ্লেমিং কর্তৃক পেনিসিলিন (এন্টিবায়োটিক) আবিষ্কৃত হওয়ার পর থেকে মধুর জনপ্রিয়তা ও গুরুত্ব কমতে থাকে। বর্তমানে অনেক প্রচলিত এন্টিবায়োটিক রেজিস্টেন্ট হয়ে যাওয়ার কারণে মধু আবার গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। বিজ্ঞানীরা মনে করেন পাকস্থলীর আলসার, বেডমোর এবং সাইনাস সংক্রমণ রোধে মধু উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে সক্ষম। আরো একটি ভয়ঙ্কর রোগের ক্ষেত্রে মধু আশাতীত ফল দিচ্ছে। বিশ্বের ১৫ শতাংশ ডায়াবেটিস রোগী পায়ের আলসারে ভুগেন। ডায়াবেটিস রোগীদের পায়ে রক্ত চলাচল কম হয় বলে রক্ত পায়ের ক্ষতস্থানে প্রচলিত এন্টিবায়োটিক পৌঁছে দিতে পারে না। এই আলসারের কারণে বিশ্বে প্রতি ৩০ সেকেন্ডে একটি পা কেটে ফেলতে হয়। মধুর কার্যপ্রণালী ভিন্ন বলে এক্ষেত্রে মধু এন্টিবায়োটিকের চাইতে অধিক কার্যকর। মধুর এসিডিক পিএইচ, মধুতে পানি স্বল্পতার কারণে জীবাণুর ডিহাইড্রেশন ক্ষমতা এবং এনজাইমের উপস্থিতিতে হাইড্রোজেন পারঅক্সাইডের সংশ্লেষণ জীবাণু ধ্বংসে কার্যকর ভূমিকা পালন করে থাকে।
আল্লাহ বলেন- “আল-কোরআন মহাবিজ্ঞানময় গ্রন্থ।” (৩৬:২) “ইহা অবতীর্ণ হয়েছে মহাপরাক্রমশালী মহাবিজ্ঞানী আল্লাহর পক্ষ হইতে।” (৩৯ঃ১)
উন্নত গবেষণায় মধু অদূর ভবিষ্যতে এক বিকল্প এন্টিবায়োটিক ও জীবাণুনাশক হিসেবে সমগ্র বিশ্বের চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বস্তু হিসেবে আবির্ভূত হবে।

link Bloger saiclone

2 responses to this post.

  1. Posted by shamimislam on February 13, 2012 at 11:37 am

    ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্হা ।সুন্দর পোস্ট ।ধন্যবাদ

    Reply

    • Posted by imti on February 13, 2012 at 4:20 pm

      পোষ্টটি ভাল লাগা ও কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ…ইসলাম নিঃসন্দেহে একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্হা

      Reply

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: