রমজানে ইফতারের গুরুত্ব

কেউ যদি রোজার নিয়ত করতে ভুলে যান, তবে তার সেহ্‌রি খাওয়ার দ্বারাই উৎকৃষ্ট নিয়ত হয়ে যাবে। যদি নিদ্রা/অন্যকোন কারণবশত কেউ সেহ্‌রি খেতে না পারে, তবে সেহ্‌রি না খাওয়াতে তার রোজার কোন ক্ষতি হবে না। এমনকি রোজা রাখতে হবে। তার রোজার জন্য খাওয়া শর্ত নয়। ইফতার আরবি ফুতুর শব্দ থেকে আগত। ইফতার/ ফুতুর শব্দের অর্থ হচ্ছে নাসতা করা, হালকা খাবার গ্রহণ করা, সকাল ও বিকেলের ছোট্ট খাবারসহ ইত্যাদি; অপর অর্থে ইফতার শব্দের অর্থ হচ্ছে বিরতি ভঙ্গ করা অথবা দিন ও রাতের মধ্যবর্তী সময়ের হালকা খাবার, ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায় রোজা ভঙ্গের জন্য সূর্যাস্তের পর সন্ধ্যা বেলায় যে ছোট হালকা খাবার, নাসতা খাওয়া হয় তাকে ইফতার বলে।

কোন মানুষ যখন যেকোন গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পাদন করে স্বভাবইত সে তার পূর্ণ প্রতিদান ফলাফল পেতে চায়, অনুরূপভাবে আধ্যাত্মিক ক্ষেত্রেও ইবাদতের বেলায় এ ধারাটি বিদ্যমান। একজন মুসলমান আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের লক্ষ্যে সারাদিন রোজা রাখে। পানাহার, স্ত্রী সম্ভোগসহ ইন্দ্রিয় লিঞ্ঝা, ভোগ বিলাস, লোভ-লালসা সর্বপ্রকার পাপ কাজ থেকে বিরত থাকে। এ অবস্থায় দিনান্তে তার মধ্যে প্রতিদান লাভের একটি প্রেরণ জেগে ওঠে। এ অবস্থায় সিয়াম পালনকারীর জন্য আল্লাহ পুরস্কারস্বরূপ ইফতারের ব্যবস্থা রেখেছেন। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সাঃ) বলেন, ইফতারের মুহূর্তে আল্লাহতায়ালা তাঁর বান্দার ওপর সন্তুষ্ট হন এবং গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেন। এ জন্যই সিয়াম পালনকারী ইফতারের সময় অপার প্রশান্তি অনুভব করে থাকে এবং ইফতারের পর মনো-দৈহিক ও আধ্যাত্মিক তৃপ্তির এক অনাবিল সুখানুভূতিতে নিজেকে পরম সৌভাগ্যবান বলে মনে করে থাকেন। রাসূল (সাঃ) বলেন, রোজাদারের জন্য দুটো খুশি-আনন্দ। ১• রোজাদার ব্যক্তি সারাদিন রোজা রেখে সন্ধ্যাবেলা ইফতারের সময়, ২• রোজাদার ব্যক্তি বেহেস্তে আল্লাহর দিদার লাভ বা সাক্ষাতের সময়। ইফতার তাড়াতাড়ি করা সুন্নত। সূর্যাস্তের পরপরই ইফতার করতে হবে। রাসূল (সাঃ) বলেন, মানুষ যতদিন তাড়াতাড়ি করবে ততদিন তাদের কল্যাণ হতে থাকবে। রাসূল (সাঃ) বলেন আল্লাহতায়ালা বলেছেন, আমরা বান্দাদের মধ্যে অধিকতর প্রিয় তারাই যারা তাড়াতাড়ি ইফতার করে। রাসূল (সাঃ) আরো বলেন, আল্লাহতায়ালা তিনটি কাজ পছন্দ করেন।

১• দ্রুত ইফতার করা
২• দেরিতে সেহ্‌রি খাওয়া,
৩• নামাজে একহাতের ওপর অন্যহাত রেখে দাঁড়ানো।

রাসূল (সাঃ) বলেন, ‘আমরা উম্মত যতদিন পর্যন্ত তাড়াতাড়ি ইফতার করবে আর দেরিতে সেহ্‌রি খাবে, ততদিন তারা কল্যাণকর পথে থাকবে।

সিয়াম পালনকারী ইফতার করার নির্দিষ্ট সময় হচ্ছে সূর্যাস্ত যাওয়ার সাথে সাথে এ সময়টি উপস্থিত হয় এবং এর সাথে সাথে ইফতারের দ্বারা রোজা ভঙ্গ করা কর্তব্য। আমাদের মাঝে কিছু কিছু মানুষ আছে ইফতারের সময় হলেও কিছুটা দেরি করতে থাকে, এর দ্বারা তারা নিজেকে বেশি পরহেজগার ও মুত্তাকি বলে গণ্য করে থাকেন। নিঃসন্দেহে ইসলাম ইবাদতকে সহজতর করেছে, যাতে মানুষের মন-প্রাণ ইবাদতের প্রতি আকৃষ্ট হয়। রাসূল (সাঃ) বলেন, আমার উম্মত ততদিন সুন্নতের ওপর প্রতিষ্ঠিত। প্রকাশ, প্রত্যেকের সামর্থ্য অনুযায়ী রোজাদার ব্যক্তিকে ইফতার করানো উচিত। সহজ উপায়ে অধিক সওয়াব অর্জনের অন্যতম উপায় হচ্ছে রোজাদার ব্যক্তিকে ইফতার করানো, এটি একটি সুবর্ণ সুযোগও বটে। হাশরের দিন একজন মুমিন ব্যক্তি তার আমলনামায় অসংখ্য রোজার সওয়াব দেখতে পেয়ে আশ্চর্য হয়ে বলবেন, আমি তো এত রোজা রাখিনি এবং এত অধিক হায়াতও পাইনি। তখন ওই আমলগুলো একটি প্রতীক হয়ে বলবে, রোজাদারকে ইফতার করানোর প্রতিদানে তার সমপরিমাণ সওয়াব হয়ে আজ এ বিপদের সময় তোমরা সাহার্যার্থে আমার আগমন।

রাসুল (সাঃ) বলেন, ‘ইফতারের সময় রোজাদারের দোয় ফেরত দেয়া হয় না। তাই আমাদের প্রত্যেকের উচিত ইফতারের সময় অধিক পরিমাণে দোয়া করা।’ মহানবী (সাঃ) ইফতারের সময় এই দোয়া পড়তেন, আল্লাহুমা লাকাছুমতু, ওয়াআলা রিজকিকা আফতারতু।’ ‘হে আল্লাহ! আমি তোমার জন্যই রোজা রেখেছি এবং তোমার দেয়া নেয়ামত দিয়েই ইফতার করছি।’

আল্লাহুম্মা লাকা ছুমতু ওয়া আলাইকা তাওয়াক্কুলতু ওয়াআলা রিজিককা আফাতারতু বিরাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমানি। অর্থ- ‘হে আল্লাহ আমি তোমারই জন্যই রোজা রেখেছি, তোমার দয়ার ওপর ভরসা করছি , আর তোমার দেয়া রিজিক দ্বারা ইফতার করছি। সবকিছু তোমারই রহমত এবং তুমিই শ্রেষ্ঠ দয়াবান।’ আমিন!

Permission is taken from Source   http://prothom-aloblog.com/users/base/lovelu1977/

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: