মহত গুন দয়া ও ক্ষমা, ইসলামের অন্যতম সৌন্দর্য্য

Permission taken from Source :  http://prothom-aloblog.com/users/base/muslima/ মুসলিমা আপু

দয়া এবং ক্ষমা মানুষের অন্যতম মহত গুণ। এই গুন একজন মানুষকে কেবল মহান হিসাবে পরিচিত করে না বরং তিনি অন্যের কাছে হয়ে উঠেন অনুকরনীয় ও অনুসরণীয়।

মহান আল্লাহর একটি গুণবাচক নাম হলো- আর রাহমান বা পরম দয়ালু। তাঁর দয়ার মহাসমুদ্র হতে একবিন্দু দয়া তিনি তাঁর প্রিয় বান্দাদেরকে দান করেছেন। এজন্যই অপরের প্রতি দয়া দেখানো মানুষের একটি অপরিহার্য ও অনন্য বৈশিষ্ট্য। পবিত্র কুরআনে আল্লাহ বলেছেন, “ আর উপাসনা কর আল্লাহর, শরীক করো না তাঁর সাথে অপর কাউকে। পিতামাতার সাথে সৎ ও সদয় ব্যবহার কর এবং নিকটাত্নীয়, এতিম-মিসকিন, প্রতিবেশী, অসহায় মুসাফির এবং নিজের দাস-দাসীর প্রতিও। নিশ্চয়ই আল্লাহ পছন্দ করেন না দাম্ভিক-গর্বিতজনকে”( ৪:৩৬) । তাই মানুষের উচিত মানবতার জন্য স্নেহশীল, করুণাপ্রবণ, সহানুভূতিশীল এবং পরস্পরের শোকে-দুঃখে বেদনা অনুভবকারী হওয়া আর ইসলাম আমাদের সেই শিক্ষাই দেয়। তারপরও আজকের মানব সমাজ থেকে দিন দিন যেন দয়া নামের এ মহৎ গুণটি বিলুপ্ত হতে চলেছে। আজ দয়া-মায়া ও মহত্ত্ববোধ নেই বলেই সমাজে এত অরাজকতা। সুতরাং একজন মুসলমান হিসেবেতো বটেই একজন মানুষ হিসেবেও আমাদের উচিত অপরের প্রতি দয়াপরবশ হওয়া। নিজের মনের পশুত্বকে বিসর্জন দিয়ে প্রকৃত মনুষ্যত্বের বিকাশ সাধন করা।

আল্লাহতায়ালা গাফুরুর রাহিম বা ক্ষমাশীল। তাই মানুষকেও ক্ষমাশীল হতে হবে। সব ধরনের লোভ, অহংকার, প্রতিশোধ স্পৃহা এবং প্রতিহিংসার প্রবণতা পরিহার করতে হবে। এইসব একজন মানুষকে করে তোলে হিংস্র ও পাশবিক। এরা কখনই মানসিক শান্তি ও তৃপ্তি লাভ করে না। এরা যেমন কাউকে ক্ষমা করতে পারে না তেমনি পারে না উদার হতে। ইসলাম মানুষকে ক্ষমা করতে শেখায়। আমাদের মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সাঃ) ইসলাম প্রচার করতে গিয়ে বহু ত্যাগ, কষ্ট, অত্যাচার, নির্যাতন ও অমানবিক ক্লেশ সহ্য করেছেন। আর এসব কিছুই তিনি সহ্য করেছেন হাসিমুখে এবং প্রতিশোধ নেয়ার সম্পূর্ন সুযোগ পেয়েও তিনি তাঁর প্রতি যারা অত্যাচার করেছে তাদের ক্ষমা করে দিয়েছেন। আল্লাহর কাছে কারো জন্য কোনরকম অভিযোগ কিংবা বদদোয়া করেননি। বরং আল্লাহর কাছ থেকে এদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার অনুমতি চাওয়া হলে বিনীতভাবে তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন। তায়েফের ঘটনা এর একটি অন্যতম উদাহরণ। ক্ষমার আদর্শ স্থাপন না করে তিনি যদি প্রতিশোধ নিতেন তাহলে ধর্ম হিসাবে ইসলাম বিস্তৃতি লাভ করত না। ইসলাম মানুষের মন জয় করতে পারত না এবং ইসলামের সৌন্দর্য্যও মানুষ উপলব্ধি করার সুযোগ পেত না।

আজকের পৃথিবীর দিকে আমরা তাকালেই দেখতে পাই আমাদের জীবনের চারপাশে নানা বিভীষিকাময় নৈরাজ্য, নৈরাশ্য, হিংসা, বিদ্বেষ, অত্যাচার, খুন খারাবি, যুদ্ধ বিগ্রহ, দ্বন্দ্ব বিরোধ। দয়া এবং ক্ষমার মত সুন্দর এই গুণগুলোই পারে আমাদেরকে এ পরিস্থিতি থেকে রক্ষা করতে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this: